Warning: Cannot modify header information - headers already sent by (output started at /var/sites/f/friendsblog.net/public_html/index.php:43) in /var/sites/f/friendsblog.net/public_html/wp-content/plugins/wp-super-cache/wp-cache-phase2.php on line 58
১০টি সহজ কৌশলে আপনার এন্ড্রয়েড স্লো+ল্যাগি+চার্জ সমস্যা দূর করুন।

১০টি সহজ কৌশলে আপনার এন্ড্রয়েড স্লো+ল্যাগি+চার্জ সমস্যা দূর করুন।

Loading...

Android-virus2

আশা করি সবাই বরাবরের মতোই ভালো আছে, আর আমিও ভালো আছি। আমদের মাঝে এখন এন্ড্রয়েড ইউজার এর সংখ্যা এখন অনেক অনেক বেশী। প্রয়োজনের সব ধরনের সফটওয়্যার সহযে এবং একখানে পাওয়া যায় বলেই হয়তো এর ইউজার এখন অনেক বেশী। কিন্তু এন্ড্রয়েড এর অন্যতম প্রধান সমস্যা হলো যত দিন পার হয় ততই স্লো হয়ে যায় আর চার্জ সমস্যা তো আছেই। সমাধান হিসেবে ফ্যাক্টরী রিসেট বেছে নেন অনেকেই। আবার ফেসবুক বা চটকদার কিছু বিজ্ঞাপন দেখে অনেকেই অনেক এপ্প নামিয়ে নেন, সুফলের আশায়। কিন্তু কিসের লাভ কোথায়, অনেক সময় দেখা যায় অই বড় বড় সফটওয়্যার গুলো উলটো র‍্যাম এর অনেক যায়গা দখল করে নিয়েছে। তাই আজ কিছু সহয সমাধান নিয়ে এসেছি আপনাদের জন্য। অনেকেই জানেন আবার অনেকেই হয়তো জানেন না। সব মিলিয়ে সবার জন্য কিছু টিপস। নিচ থেকে মিলিয়ে নিন কোনটি আপনি জানেন আর কোনটি নতুন আপনার জন্য।

০১. প্রথমেই বলবো শেয়ার ইট এপের কথা। এই এপ্প টি নেই এমন এন্ড্রয়েড সেট অনেক কম পাওয়া যাবে। এটা সমস্যা নয়। সমস্যা হলো এটির জন্য আপনার সেটে ওয়াইফাই হটস্পট চালু হয়। তাই যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব কাজ সারুন। এতে আপনার চার্জ বেচে যাবে অনেকটা। অনেক সেট এ অটো বন্ধ হয় হটস্পট আবার অনেক সেটে বন্ধ হয় না। তাই আপনার সেট অনুযায়ী মনে করে ওয়াইফাই হটস্পট বন্ধ করুন আর সাশ্রয় করুন আপনার চার্জ। আর একটা কথা, আপনার ডাটা চালু থাকলে আর ওপেন হটস্পট চালু থাকলে অটো কানেক্ট করে আপনার সীমিত কেনা ডাটা আপনার অজান্তে অন্যরা ব্যবহার করতে পারে। তাই সাবধান।

 

০২. শেয়ার ইট নিয়ে আরো একটি কথা। এতে আপনার সেট এ অটো ওয়াইফাই চালু হবে, মনে করে এটিও বন্ধ করুন আর সুরক্ষিত থাকুন।

 

০৩. অনেকের সেট এ ইন্টারনাল স্টোরেজ কম থাকে। তাই সেটিং থেকে ডিফল্ট ইনস্টল লোকেশন দেখিয়ে দিন এসডি কার্ড। এতে আপনার সেটে যেমন ইন্টারনাল স্টোরেজ কিছু হলেও ফাকা হবে তেমনি সেট ও স্পিডি হবে।

 

০৪. ইন্টারনাল স্টোরেজ কম দেখিয়ে প্ল্র স্টোর থেকে এপ ইনস্টল নিচ্ছে না? সমস্যা নেই। আপনার কাংখিত এপটির নাম লিখে পাশে apk জড়িয়ে দিয়ে সার্চ দেন আর পেয়ে যাবেন আপনার কাংখিত এপ্পটির ডাউনলোড মিরর।নামিয়ে নিন এসডি কার্ডে আর ইনস্টল করুন এসডি কার্ড থেকে। এছাড়া কিছু ট্রাস্টেড সাইট রাখতে পারেন আপনার বুকমার্কে। যেমনঃ apk4fun, apkpure ইত্যাদি আর প্রয়োজনীয় এপ্প স্টোর করুন।

 

০৫. প্লে স্টোর থেকে না নিয়ে পারলে অন্য মিরর থেকে নামিয়ে নিন আপনার কাংখিত এপ্প। কারন কোনো কারনে আপনাকে সেট ফ্যাক্টরী রিসেট দিতে হলে আবার নতুন করে ডাটা খরচ করে সকল এপ্প নামাতে হবে। কিন্তু আপনি এসডি কার্ডে স্টোর করলে আর এই বাড়তি ডাটা খরচ করতে হবে না।

 

০৬. ইন্টারনাল স্টোরেজ কম থাকার কারনে অনেকেই অনেক এপ্প ব্যবহার করতে পারেন না আবার প্রয়োজনটা অনেক বেশী হয়ে দাঁড়ায় কখনো। যেমন অফিস এপ্লিকেশন, পিডিএফ রিডার সবসময় কাজে লাগে না, কিন্তু প্রয়োজন কম নয় কিনতু। তাই এটি এসডি কার্ডে স্টোর করুন। কাজ শেষে আনইনস্টল করে দিন আর প্রয়োজনে ইনস্টল করে নিন।আপনার প্রয়োজন ও মিটলো আর র‍্যাম বা স্টরেজ এর চাপ ও থাকলো কম।

 

০৭.ডিইউ মিটার বা ব্যাটারী সেভার ইত্যাদি এপ্প গুলো ব্যবহারের পক্ষপাতি আমি না। কারন এই কাজগুলো আমি নিজেই করতে পারি। কিছু জিনিস লক্ষ্য করুন। আপনি মনে করে আপনার সেটের ব্রাইটনেস ঠিক রাখুন। এতে আপনার চার্জ অনেকটা বেচে যাবে।যেমনঃ বাইরে গেলে ব্রাইটনেস বেশী লাগে আবার বাসায় বা ঘরে কম ব্রাইটনেস থাকলেই চলে। তাই নিজের প্রয়োজন মত ঠিক করুন। ব্যাটারীর পাওয়ার কম থাকলে সবসময় ডাটা অন রাখবেন না, প্রয়োজনে ব্যবহার করুন। ওয়াইফাই ব্যবহার প্রচুর চার্জ ব্যয় করে। তাই একবার ভেবে নেবেন।

 

০৮. প্রয়জনের অতিরিক্ত এপ্প সেটে না রাখাই ভালো। চেক করে নিন একবার কোনগুল আপনার সবসময় প্রোয়োজন। অন্যথা এপ্প রাখবেন না। এতে আপনার র‍্যাম খরচ হবে, ইন্টারনাল স্টোরেজ কমে যাবে আর সর্বোপরি আপনার সেট স্লো হয়ে যাবে। দেখে সিদ্ধান্ত নিন কোনগুল রাখবেন।

০৯. নেট ব্রাউজিং এর সময় অনেক এপ্প অটো ডাউনলোড হয়ে যায়, যেগুলো কাজের নয়। চেক করে আনইনস্টল করে নিন।

 

১০. ইন্টারনেট স্পীড মিটার, লাইভ ওয়ালপেপার, লঞ্চার ইত্যাদি এপ্প গুলো পারলে পরিহার করুন। এগুলো মাত্রাতিরিক্ত চার্জ খায় আর র‍্যামের বারোটা বাজায়।

 

কিছু কথাঃ

 

  • আমাদের দেশে এখনো ২৫৬ বা ৫১২ এম্বি এর র‍্যামের ফোন ইউজার অনেক। যারা ইচ্ছা করলেও অনেক এপ্প ব্যবহার করতে পারেন না। তারা কৌশলগুলো কাজে লাগাতে পারেন।
  • অনেকেরই সেটে ১৩০০-১৮০০ mAh এর ব্যাটারী আছে। তাই নিজেই একটু কেয়ার করেন, অতিরিক্ত সফটওয়্যার ব্যবহার না করে।
  • আর সেট কেনার সময় আপনার বাজেটের সাথে মিলিয়ে কোর, ব্যাটারী, স্ক্রীণ ও র‍্যাম অনুযায়ী সেট নিন।
  • পারলে আপনার প্লেস্টোর সার্ভিস এর আপডেট আনইনস্টল করে নিন কিনতি সার্ভিস আনইনস্টল করবেন না।
  • মনে রাখবেন, ব্রান্ডের কপি সেট ব্যবহারের থেকে মনে হয় চায়না ব্রান্ড অনেক ভাল হয়।
  • ব্যাটারী কম, ট্রাভেলে বাইরে যাবেন, চিন্তিত? ছোটখাটো দেখে ২৬০০-৫০০০ mAh এর একটা পাওয়ার ব্যাংক সাথে রাখতে পারেন।
  • যদি ইউটিব ভিডিও না দেখেন, মেইল ব্যবহার না করেন বা সেটের প্রি ইনস্টল কোনো এপ্প ব্যবহার না করেন তবে আনইনস্টল করতে না পারলে ডিসএবল করে নিন, এতে র‍্যামের উপর অতিরিক্ত চাপ কমে যাবে।
  • এডভান্সড ইউজার না হলে প্লিজ সেট রুট করবেন না।
  • যদি কম র‍্যামের ফোন এ মোটামুটি গেম খেলার সময় ল্যাগ করে অর্থাৎ আটকে আটকে যায় তাহলে আপনি গেম বুস্টার সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। আমি cm game booster সফটয়্যার টি ব্যবহার করি। এটি আপনার গেম খেলার সময় অন্য সফটওয়্যার এর একটিভিটি কমিয়ে আপনার গেম এর জন্য র‍্যাম ফাকা করে স্পিড এনে দেবে।

 

 

Loading...